WB Karmai Dharma Scheme | কর্মই ধর্ম প্রকল্প ~ উন্নয়নের এক গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ

Wednesday, April 20 2022, 6:39 am
highlightKey Highlights

আসুন জেনে নেওয়া যাক পশ্চিমবঙ্গ সরকার তথা মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী শ্রীমতি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আরেকটি সফল উদ্যোগ "কর্মই ধর্ম প্রকল্প" কিভাবে রাজ্যবাসীকে সাহায্য করেছে।


ভূমিকা | Introduction of Karmai Dharma

পূর্বেকার বহু প্রকল্প যেমন কন্যাশ্রী, সবুজসাথী প্রভৃতির অসামান্য সাফল্য এবং সর্বত্র সমাদরের পর পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উদ্যোগে ও মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণার 'কর্মই ধর্ম" নামক আরেকটি উন্নয়নমূলক প্রকল্প চালু করা হয়েছে যার ফলে মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য অনুসারে কোনও একজন নয়, পুরো একটা পরিবার উপকৃত হবেন৷ উক্ত প্রকল্পে ২ লক্ষ মানুষকে কাজের সুযোগ দেওয়া হবে যার প্রকৃত অর্থ দশ লাখ মানুষের অন্ন সংস্থান করা ৷ প্রকল্পটির আওতায় দুই লাখ যুবক যুবতীদের সমবায় ব্যাঙ্কগুলির সহায়তায় একটি করে মোটরবাইক সরবরাহ করা হবে। রাজ্যের বেকার যুবক-যুবতীদের কর্মসংস্থানের সু বন্দোবস্ত এবং স্বনির্ভর করার লক্ষ্যে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর দ্বারা পরিকল্পিত নয়া এই গঠনমূলক ও স্বনির্ভর প্রকল্পটি চালু করা হয়েছে।

মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী চলতি বছর অর্থাৎ ২০২১ সালে কর্মই ধর্ম প্রকল্পটি চালু করেন। বেকারত্বের সমস্যাকে মাথায় রেখে রাজ্য সরকারের এই অনন্য প্রকল্পের উদ্ভাবন ।

কর্মই ধর্ম প্রকল্পের উদ্দেশ্য | Purpose of Karmai Dharma

  1. বেকার যুবক যুবতীদের কর্মসংস্থান এবং স্বনির্ভর করে তোলাই এই প্রকল্পের প্রধান উদ্দেশ্য। বেকার যুবক যুবতীদের কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্ক থেকে কোনও ঝামেলা ছাড়াই এবং সুদমুক্ত ঋণের ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে যাতে সহজে তারা মোটরসাইকেল কিনতে পারে৷
  2. প্রতিটি মোটরসাইকেলের মাধ্যমে প্রায় দুই লক্ষ যুবক যুবতী উপকৃত হতে পারবে এবং মোটরসাইকেলের ব্যবহারের ফলে ব্যবসার কাজ ও ত্বরান্বিত হবে।
  3. সরকারের এই উদ্যোগ নিয়েছেন যাতে দু লক্ষ যুবকযুবতীর কর্মসংস্থান হেতু দশ লক্ষ মানুষ উপকৃত হতে পারেন। মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মহাশয়া মনে করেন যে ২ লক্ষ মানুষকে কাজের সুযোগ দেওয়া মানে দশ লাখ মানুষের অন্ন সংস্থান করা ।
  4. কর্মই ধর্ম প্রকল্পটি বেকার যুবক যুবতীদের ছোট ব্যবসার ক্ষেত্রে উদ্যোগী এবং সক্ষম করার জন্য একটি অভিনব প্রকল্প। সরকার থেকে প্রদেয় মোটরসাইকেল বা বাইক করে ছেলেমেয়েরা ফল, সবজি ও শাড়ির মতো জিনিস নিয়ে বিক্রি করতে পারবে । মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর মতে কোনও কাজই ছোট নয়, কোনও কাজই খারাপ নয় এবং তিনি আরও মনে করেন যে এই প্রকল্পটির ফলে কোনও একজন নয় পুরো একটা পরিবার উপকৃত হবে ।
  5. মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন যে সরকারের পক্ষ থেকে এই প্রকল্পের আওতায় মেধাবী ছাত্রদের শতভাগ বৃত্তি প্রদান করা হবে।
  6. পশ্চিমবঙ্গে বেকারত্বের হার হ্রাস পেয়ে প্রায় ৪০ শতাংশ হয়েছে। কর্মই ধর্ম এই নতুন প্রকল্পটির সাহায্যে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বেকারত্বের হারকে আরও লাঘব করার প্রয়াস করেছেন।
  7. কর্মই ধর্মের মতো একটি উন্নয়নমূলক প্রকল্প বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান পেতে এবং পরিবার পরিচালনা করতে সহায়তা করবে। সেই লক্ষ্যে এই প্রকল্পটি চালু করা হয়।

কর্মই ধর্ম প্রকল্পের সুযোগ সুবিধা | Benefits of Karmai Dharma

  1. *কর্মমই ধর্ম প্রকল্পের বাস্তবায়নের মাধ্যমে যে প্রধান সুবিধা প্রদান করা হবে তা হল এই প্রকল্পের স্ব-কর্মসংস্থান প্রকৃতি। 
  2. এই প্রকল্পের আওতায় যেসব যুবক যুবতীদের মোটরসাইকেল প্রদান করা হবে তার ফলে প্রায় দুই লাখ যুবক উপকৃত হবে এবং সুবিধাভোগীদের এই আর্থিক সাহায্য সমবায় ব্যাংক থেকে দেওয়া হবে।
  3. বাইকগুলির পিছনের সিটে বাক্স থাকবে যাতে যুবকরা সেই বাক্সগুলিতে নির্দিষ্ট জিনিস বহন করতে পারে। নির্দিষ্ট আইটেম ডেলিভারির জন্য বাইকগুলি অত্যন্ত উপকারী হবে। এই বাইকের মাধ্যমে, তরুণরা আজকাল যে ছোট ব্যবসা শুরু করছে তারা উপকৃত হবে। মেধাবী ছাত্রদের শতভাগ বৃত্তি প্রদান করা হয়ে থাকে।
  4. যুবক যুবতীরা শাড়ি কাপড় বা যেকোনো ছোট ব্যবসার ক্ষেত্রে জিনিস বিক্রি করতে সক্ষম হবে।
  5. পূর্বেই উল্লেখিত যে এই প্রকল্পের আওতায় প্রায় দু লক্ষ সুবিধাভোগীরা প্রত্যেকে একটি করে মোটরবাইক পেয়ে থাকবেন ।

কর্মই ধর্ম প্রকল্পের যোগ্যতার মানদণ্ড | The criterion of eligibility for Karmai Dharma

পশ্চিমবঙ্গ কর্মই ধর্ম প্রকল্পের জন্য আবেদন করার সময় আবেদনকারীকে নিম্নলিখিত যোগ্যতার মানদণ্ড অনুসরণ করতে হবে:-

  • প্রথমত, আবেদনকারীকে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে। 
  • আবেদনকারীকে অবশ্যই বেকার হতে হবে। 
  • একজন আবেদনকারীকে অবশ্যই একটি ভাল চাকরি বা কাজের সন্ধানে থাকতে হবে। 
  • আবেদনকারীকে অবশ্যই একটি স্বীকৃত বোর্ড থেকে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। 
  • যারা স্বইচ্ছায় একটি নতুন ব্যবসা বা উদ্যোগ শুরু করছেন এবং যাদের কিছু তহবিলের প্রয়োজন রয়েছে তারা এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে পারেন।

কর্মই ধর্ম প্রকল্পের জন্য প্রয়োজনীয় নথি | The necessary document for Karmai Dharma

উক্ত প্রকল্পটির জন্য আবেদন করার সময় নিম্নলিখিত নথির প্রয়োজন:-

  1. পাসপোর্ট সাইজের ছবি 
  2. আধার কার্ড 
  3. ঠিকানার প্রমাণ 
  4. দশম শ্রেণি উত্তীর্ণ করার মার্কশিট 
  5. দ্বাদশ শ্রেণীর মার্কশিট 
  6. শিক্ষাগত সনদ 
  7. ভোটার আইডি কার্ড 
  8. পারিবারিক আয়ের শংসাপত্র 

আবেদন প্রক্রিয়া ডব্লিউবি কর্মই ধর্ম যোজনা ২০২১ | Application Process WB Karmai Dharma Yojana 2021 

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উদ্যোগে পরিচালিত “কর্মই ধর্ম ২০২১”, নতুন স্কিমটির সম্পর্কে অনেক তথ্য এখনও পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ উপস্থাপন করেনি। তথ্য বের হওয়ার সাথে সাথে পোর্টালের মাধ্যমে সবরকম তথ্য পরিবেশন করা হবে ।

আপাতত একটি ধারণা পেতে আবেদনকারীরা এই প্রক্রিয়াটি অনুসরণ করতে পারেন:

'কর্মই ধর্ম' প্রকল্পের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটটি প্রথমে খুলতে হবে; তারপর হোম পেজটি প্রদর্শিত হলে 'অ্যাপ্লাই অনলাইন' বোতামটিতে ক্লিক করতে হবে; পরবর্তীতে অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম পৃষ্ঠাটি স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে যেখানে প্রয়োজনীয় তথ্য বিশদে লিখতে হবে এবং চাহিদা অনুযায়ী নথিগুলো আপলোড করতে হবে নির্ধারিত সাইটে। আবেদনের চূড়ান্ত তথ্য জমা দেওয়ার জন্য 'সাবমিট' বাটনে 'প্রেস' বা 'ক্লিক' করতে হবে। 

বিশদ জানতে নিম্নে প্রদেয় অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ক্লিক করতে পারেন | Website of Karmai Dharma Yojana

"Government of West Bengal - Egiye Bangla" https://wb.gov.in 'কর্মই ধর্ম 'প্রকল্পের সম্পূর্ণ প্রয়োগ প্রক্রিয়া সম্পর্কিত তথ্য কেবলমাত্র প্রকল্পটির আনুষ্ঠানিক প্রবর্তনের পরেই উপলব্ধ হবে। আনুষ্ঠানিক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরে আবেদনকারীরা পশ্চিমবঙ্গের এই প্রকল্পে অনলাইনে আবেদন বা নিবন্ধন ফর্ম  পূরণ করতে পারবেন ।




পিডিএফ ডাউনলোড | Print or Download PDF File