WB Sabujshree Prakalpa | “সবুজশ্রী প্রকল্প” ~ সজীবতার অঙ্গীকার

Thursday, April 28 2022, 12:23 pm
highlightKey Highlights

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের সবুজ প্রকৃতিকে বজায় রাখতে নিয়ে এসেছেন 'সবুজশ্রী প্রকল্প', আসুন জেনে নেওয়া যাক এই প্রকল্প কিভাবে বনবিভাগকে সাহায্য করছে।


ভূমিকা | Introduction of Sabujshree Prakalpa

বর্তমান সমাজে গ্লোবাল ওয়ার্মিং অন্যতম একটি প্রধান উদ্বেগ যা পরিবেশকে ক্রমে ধ্বংসের পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে । সবুজায়নের প্রয়োজনীয়তার স্বার্থে এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মেকে সুরক্ষিত করতে পশ্চিমবঙ্গ সরকার বদ্ধপরিকর। 

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবেশ সম্পর্কে জন সচেতনতা বৃদ্ধি করতে এবং নবজাতক শিশুকে প্রতিরক্ষার তাগিদে একটি নতুন প্রকল্পের রূপায়ণ করেন যার নাম  সবুজশ্রী প্রকল্প। পরিবেশবান্ধব এই প্রকল্পের মাধ্যমে  রাজ্য সরকার প্রতিটি নবজাতক শিশুর পরিবারকে একটি করে চারা গাছ উপহার দেওয়া সিধান্ত গ্রহণ করেছেন যাতে ধরিত্রি আবার সুজলা সুফলা শস্য শ্যামলা হয়ে ওঠে।সবুজশ্রী প্রকল্প মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একটি বহুমুখী পরিকল্পনা এবং এই প্রকল্পের হাত ধরে “সবুজ বাংলা” গড়ার মূল লক্ষ্য ছিল তাঁর ।

প্রকল্পটি শুভারম্ভ | Launch of Sabujshree Prakalpa

পশ্চিমবঙ্গের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় ২০১৬ সালে সবুজশ্রী প্রকল্পের স্বার্থক রূপ দান করা হয় ।  রাজ্যের প্রতিটি শিশু ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর তাদের পরিবারের হাতে একটি গাছের চারা তুলে দেওয়া হয়ে থাকে এবং গাছটির নামকরণ করা হয় নবজাতক শিশুটির নামানুসারে । ধীরে ধীরে ছোট শিশুটির সঙ্গেই বেড়ে উঠবে সেই গাছের চারাটি। শিশুর পরিবারকেও গাছের চারাটিকে নিজের শিশুর মতো করেই লালনপালন করতে হবে ও পরবর্তীকালে শিশু বড় হয়ে গাছটি তার প্রয়োজন মতো ব্যবহার করতে পারবে। প্রয়োজন পড়লে প্রাপ্তবয়স্ক হয়ে সে আর্থিক কারণেও গাছটি ব্যবহার করতে পারবে। উক্ত প্রকল্পটির লক্ষ্য প্রতিটি সন্তানের আর্থিক নিরাপত্তার একটি নির্দিষ্ট পরিমান নিশ্চিত করা এবং রাজ্যে সবুজের আচ্ছাদন বাড়ানো। সবুজশ্রী প্রধানত বন, পঞ্চায়েত ও পল্লী উন্নয়ন ও স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের একটি সহযোগিতামূলক প্রচেষ্টা।

সবুজশ্রী প্রকল্পের উদ্দেশ্য | Purpose of Sabujshree Prakalpa

  1. সন্তানের বেড়ে ওঠার সাথে সাথে শিশু এবং গাছের মধ্যে মানসিক এবং ব্যক্তিগত মেলবন্ধন তৈরী করা; তাদের মধ্যে অচ্ছেদ্য সম্পর্ক ও অনুভূতি গড়ে তোলার জন্যই এই প্রকল্প। 
  2. বৃক্ষ রোপণের উদ্দেশ্যেই এই প্রকল্প শুরু করা হয়। 
  3. পরিবেশ সম্পর্কে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি করা এবং বন্ধন তৈরি করা। 
  4. ভবিষ্যতের চাহিদা যাতে পূরণ করা যায় , সন্তানের জন্য সেই সম্পদ তৈরি করা। 
  5. গণনায় দেখা গেছে যে রাজ্যে প্রতি বছর রাজ্যে ১৫ লক্ষ সন্তানের জন্ম হয়। অতএব প্রত্যেক পরিবার যদি একটি করে চারাগাছ পায় এবং লাগায় তাহলে ১৫ লক্ষ বৃক্ষ রোপণ করা সম্ভব হবে। অর এর ফলে প্রতিবছর ১৫ লক্ষাধিক চারা রোপণের মাধ্যমে রাজ্যের গ্রিন কভার বৃদ্ধি করা সম্ভব হবে। 
  6. রাজ্য শিশু সচেতনতা এবং এক ই সাথে পরিবেশ সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্য নিয়ে চালু করা হয় সবুজশ্রী প্রকল্প। 
  7. “সবুজ বাংলা” গড়ে তোলা এর অন্যতম উদ্দেশ্যে। 
  8. শিশু প্রাপ্তবয়স্ক হবার পর সরকার থেকে প্রাপ্ত গাছটি বিক্রি করে তার প্রয়োজনীয় আর্থিক অভাব মেটাতে পারবে। তাই তাদের ভবিষ্যতের আর্থিক সুরাহার কথা মাথায় রেখে এই Prakalpa চালু করা হয়। 
  9. সবুজায়নের পাশাপাশি শিশুর ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করাও এই প্রকল্পের এর অন্যতম প্রধান লক্ষ্য।
  10.  শিশু বয়স থেকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে গাছ লাগানোর সুশিক্ষা প্রদান করা।

প্রকল্পের অঞ্চল | Project area of Sabujshree Prakalpa

গোটা পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যটি হল এই প্রকল্পটি বাস্তবায়নের ক্ষেত্র। গ্রামীণ ও শহর উভয় অঞ্চলই এই সবুজ প্রকল্পের আওতায় নিয়ে আসার প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে শহরাঞ্চলে, অনেক গৃহহীন বা ফ্ল্যাটের বাসিন্দারা আছেন যারা এই প্রকল্পে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না।

প্রকল্পের হস্তক্ষেপ | Intervention of Sabujshree Prakalpa

সবুজশ্রী প্রকল্পের মাধ্যমে পশ্চিমবঙ্গে জন্মগ্রহণকারী প্রতিটি শিশুকে মূল্যবান চারা উপহার দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়। গণনায় দেখা গেছে প্রতি বছর রাজ্যে 15 লক্ষ শিশু জন্ম হয়। প্রস্তাব অনুযায়ী মেহোগানী, সেগুন, গামার, সিসু, রেড স্যান্ডার, রোজউডের মতো ভূখণ্ডের উপযোগী মূল্যবান প্রজাতির চারাগুলি শিশুর জন্মের সময় তার সন্তানের বাবা-মাকে উপহার হিসেবে দেওয়া হবে। চারা প্রদান করার সাথে সাথে সারের একটি প্যাকেট, বৃক্ষরোপণের পদ্ধতির নোট সহ পামফলেট সরবরাহ করা হয়ে থাকবে।

চারাগাছ প্রদান করার নিয়ম | Rules for providing seedlings

পৌরসভা, গ্রাম পঞ্চায়েত, হাসপাতাল ইত্যাদি কর্তৃপক্ষের সাথে রেজিস্ট্রেশন করা প্রতিটি শিশুর জন্মের সাথে শিশুর পিতামাতাকে শংসাপত্রের সাথে তার পিতামাতার ঠিকানা, যোগাযোগের বিবরণ নিয়ে তাদেরকে একটি চারাগাছ উপহার দেওয়া হবে।

প্যাকেজিং | Packaging

প্রতিটি চারা কাস্টমাইজড পাট ব্যাগে বিতরণ করা হবে আর তার সাথে সারের একটি করে প্যাকেট এবং একটি লিফলেট যেখানে রোপণের পদ্ধতি এবং কী কী ভাবে যত্ন নেওয়া হবে সে সম্পর্কে বিশদ তথ্য সরবরাহ করা হবে। প্রকল্পের জন্য উপযুক্ত ব্যাগ ডিজাইন করা হয়ে থাকে।

বিতরণ ব্যবস্থা | Distribution system

নিবন্ধকরণ কর্তৃপক্ষ যেমন গ্রাম পঞ্চায়েত বা পৌরসভা নিকটতম বন অফিসকে চারাগাছ প্রদানের ব্যাপার অবহিত করবে। অরণ্য বন্ধু বস আশা কর্মীর সহায়তায় বন অফিস বিজ্ঞপ্তিত কর্তৃপক্ষ অর্থাৎ গ্রাম পঞ্চায়েত অথবা পৌরসভাকে চারা সরবরাহ করে। প্রকৃত হস্তান্তরটি প্রতি মাসের ১৪ তারিখে সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞপ্তিত অথরিটি কর্তৃক সম্পন্ন করা হবে।

সবুজশ্রী প্রকল্পের সুবিধা | Benefits of Sabujshree Prakalpa

সবুজশ্রী প্রকল্পের সুবিধাগুলি নীচে দেওয়া হল:

  1.  পশ্চিমবঙ্গের প্রত্যেক নবজাতক শিশু জন্মানোর পর বন দপ্তরের কাছ থেকে বিনামূল্যে একটি করে মূল্যবান গাছের চারা পাবে।
  2. চারা গাছটি নবজাতক শিশুর প্রত্যেক পরিবার ই লাভ করবে।
  3. প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার পর শিশু তার নিজের প্রয়োজন মতো গাছটি ব্যবহার ও করতে পারবে।
  4. বড় হয়ে নিজের আর্থিক প্রয়োজনে সে গাছটি বিক্রি করে আর্থিক অভাব দূর করতে সক্ষম হতে পারে।
  5. সবুজশ্রী প্রকল্পটির মাধ্যমে প্রতি বছর ১৫ লাখ বৃক্ষ রোপণ করা সম্ভব হয়েছে।
  6. বৃক্ষ রোপণের মাধ্যমে পরিবেশ সচেতনতা অনেক বেড়েছে।

সবুজশ্রী প্রকল্পের জন্য যোগ্যতা – 

সবুজশ্রী প্রকল্প এর জন্য আলাদা কোন যোগ্যতার প্রয়োজন নেই। রাজ্যের নবজাতক শিশুরা, যারা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে জন্মগ্রহণ করবে কেবল তারাই এই  প্রকল্পের সুবিধা লাভ করতে পারবে।

প্রকল্পের জন্য বিস্তারিত জানতে এই লিঙ্কে ক্লিক করুন 

কয়েকটি উল্লেখযোগ্য সাফল্য হল | Achievements 

২০১৭-র মার্চ পর্যন্ত, ২ লাখেরও বেশী চারা বিলি হয়েছে। বন-অধিকার এর অধীনে বন্যপ্রাণ বিভাগ রাজ্যের ৪৬৯২ বর্গকিলোমিটার সংরক্ষিত এলাকা দেখাশোনা করে, যা রাজ্যের মোট ভৌগলিক এলাকার ৫.২৮%। 

প্রশ্নোত্তর - Frequently Asked Questions

সবুজশ্রী প্রকল্পের সুবিধা কি?

সবুজশ্রী প্রকল্পের অধীনে সদ্যোজাত শিশুকে সরকারের তরফ থেকে একটি চারা গাছ দেওয়া হবে, শিশুটি বড় হলে এই গাছের মাধ্যমে তার আর্থিক প্রয়োজন মেটাতে পারবে।

সকল শিশুরাই কি রাজ্য সরকারের সবুজশ্রী প্রকল্পের অধীনে চারা গাছ পাবে?

রাজ্যের নবজাতক শিশুরা, যারা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে জন্মগ্রহণ করবে তারাই কেবল এই প্রকল্পের অধীনে চারা গাছ পাবে।

সবুজশ্রী প্রকল্পে চারা গাছ কখন পাওয়া যাবে?

নবজাতক শিশুটি হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়ার সময় চারা গাছটি পাবে।

সবুজশ্রী প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে হয় কীভাবে?

এই প্রকল্পের জন্য আলাদা করে আবেদন করার প্রয়োজন নেই। শিশুটি হাসপাতাল থেকে চলে আসার সময় বন দপ্তর থেকে শিশুর অভিভাবকের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের হাতেই তুলে দেবে চারা গাছটি।

এই গাছটি কি আর্থিক প্রয়োজনে ব্যবহার করা যাবে?

হ্যাঁ, শিশুটি বড় হয়ে চাইলে গাছটি বিক্রি করে তার আর্থিক প্রয়োজন মেটাতে পারবে।




পিডিএফ ডাউনলোড | Print or Download PDF File