আন্দামানের সেলুলার জেলের ভয়াবহ ইতিহাস | History of cellular prisons

Thursday, December 23 2021, 10:45 am
highlightKey Highlights

আন্দামানে অবস্থিত সেলুলার জেলকে ব্রিটিশ সরকার রাজনৈতিক বন্দীদের প্রত্যন্ত দ্বীপপুঞ্জে নির্বাসনের উদ্দেশ্যে ব্যবহার করেছিল।


আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের (ভারত) পোর্ট ব্লেয়ারে অবস্থিত সেলুলার জেল এখন একটি জাতীয় স্মৃতিসৌধ। এখানকার সমুদ্রের জল খুবই গভীর এবং কালো রঙের হওয়ার কারণে সেলুলার জেলকে আবার “কালা পানি”ও বলা হয়।

সেলুলার কারাগার নির্মাণ | Construction of Cellular Jail:

১৮৯৬ সালে সেলুলার জেলের নির্মাণকাজ শুরু হয় এবং ১৮৯০ সালের লায়ল-লেথব্রিজ কমিশনের (Lyall-Lethbridge commision) পরামর্শের ভিত্তিতে ১৯১০ সালে নির্মাণকাজ সম্পন্ন হয়। সেলুলার জেলের নির্মাণে ব্যবহৃত ইটগুলি বার্মা থেকে আনা হয়েছিল, যা আজকের দিনে মায়ানমার (Burma, Myanmar) নামে পরিচিত।

এই সেলুলার জেলের প্রতিটি ইটে রয়েছে প্রতিরোধ, কষ্ট ও ত্যাগের হৃদয়গ্রাহী গল্প। ১৮৫৭ সালে স্বাধীনতার প্রথম যুদ্ধের পরে ব্রিটিশদের দ্বারা আন্দামানে যে শাস্তিমূলক বন্দোবস্ত প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল তা ছিল ভাইপার দ্বীপের (Viper Island) বিশাল এবং ভয়ঙ্কর জেলে মুক্তিযোদ্ধাদের যন্ত্রণাদায়ক গল্পের সূচনা এবং তারপরে সেলুলার জেল। সেসময় যেসকল দেশপ্রেমিক ব্রিটিশ রাজের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছিলেন তাদের এই জেলে পাঠানো হয়েছিল এবং তাদের মধ্যে অনেকের মৃত্যু হয়েছিল। কারাগারটি ৭টি উইং সহ একটি ৩টি তল নিয়ে ভবন হিসাবে নির্মিত হয়েছিল, প্রতিটি ডানা সেন্ট্রাল টাওয়ার থেকে চাকার স্পোকের মতো প্রসারিত।

সেলুলার জেলের নির্মাণ
সেলুলার জেলের নির্মাণ

সেলুলার জেলের অন্তর্গত প্রতিটি প্রতিটি কক্ষের পরিমাপ ১৩.৫ ফুট বাই ৭ ফুট। প্রতি কক্ষের সামনের দিকে ছিল লোহার ঝাঁঝরি দিয়ে দরজা। প্রতিটি কক্ষেই দরজা থেকে প্রায় ১০ ফুট উঁচুতে ৩ ফুট বাই ১ ফুট মাপানুযায়ী একটি করে ভেন্টিলেটর সরবরাহ করা হয়েছিল। কারাগারের নির্মাণ এমনভাবে করা হয়েছিল যে প্রতিটি উইংয়ের সামনের অংশটি অন্য উইংয়ের পিছনের দিকের মুখোমুখি ছিল; যাতে কারারুদ্ধ থাকাকালীন কোনও বন্দী একে অপরকে দেখতে না পায়।

সেলুলার জেলের জীবন কাহিনী | The life story of a cellular prison: 

সেলুলার জেলে বন্দীদের জীবন | Prisoners Life in Cellular Jail:

রাত্রি বেলায় বন্দীরা যাতে আরাম করার সুযোগ না পায়, সেদিকে পেয়াদাররা নজর রাখত। এমনকি রাত্রে মূল-মূত্র ত্যাগ করার জন্য যে পাত্রটি দেওয়া হত, সেটি এতই ক্ষীণ ছিল যে রাতে একবারও সেটিতে নিঃসরণ করা যেত না। সকালে প্রকৃতির ডাকে অর্থ্যাৎ প্রাতঃ ক্রিয়াকর্ম সারতে জমাদারের কাছে হাঁটু গেড়ে তাকে বের করে দিতে হয়।

সেলুলার জেলে সুভাষ চন্দ্র বোস (নেতাজী)
সেলুলার জেলে সুভাষ চন্দ্র বোস (নেতাজী)

সেলুলার জেলে মুক্তিযোদ্ধাদের জীবন | Life of freedom fighters in cellular jail:

সেলুলার জেলে থাকা বন্দীদের কয়েকজন পরিচিত রাজনৈতিক বন্দী হলেন বারীন্দ্র কুমার ঘোষ, উপেন্দ্র নাথ ব্যানার্জী, হেম চন্দ্র দাস, উল্লাসকর দত্ত, ইন্দুভূষণ রায়, বিভূতি ভূষণ সরকার, হৃষিকেশ কাঞ্জিলাল, সুধীন কুমার সরকার, অবিনাশ চন্দ্র ভট্টাচার্য এবং বীরেন্দ্র চন্দ্র সেন। ১৯১০ সালের পর এই সমস্ত বন্দিকে মানিকটোল্লা ষড়যন্ত্র মামলায় অংশগ্রহণের জন্য তাদের দোষী সাব্যস্ত করে সেলুলার জেলে পাঠানো হয়েছিল। 

বীর বিনায়ক দামোদর সাভারকরকে ৪ঠা জুলাই, ১৯১১ সালে আন্দামানে পাঠানো হয় যাবজ্জীবনের জন্য দুটি পরিবহনের সাজা দিয়ে। তিনি যখন সেলুলার জেলে আসেন, তখন তাঁর বড় ভাই গণেশ সাভারকর সেখানে আগে থেকেই ছিলেন। কিন্তু সাভারকর ভাইরা এক বছর জেলে থাকার পরই এই সত্যটি জানতে পেরেছিলেন।

সেলুলার জেলে একজন মহিলা দণ্ডিত হিসেবে জীবন | Life as a Female Convict in Cellular jail:

সেলুলার জেলে নারী জীবন দণ্ডিতদের দুটি শ্রেণী ছিল - শাস্তি ওয়ার্ডের প্রথম তিন বছর এবং বাকি বছর তারপর হয় কারাগারের বাইরে বিবাহ বা গৃহকর্মে কর্তৃপক্ষের সম্মতিতে অথবা অন্যথায় আন্তঃম্যুরাল কাজ এবং সম্ভাবনা সহ ব্যারাকে কারাগারের জীবন অব্যাহত রাখা হত। একজন মহিলা জীবনের দণ্ডপ্রাপ্তরা ১৫ বছর পরে চলে যেতে পারে, তবে বিবাহিত কোনো নারীকে তার স্বামীর মেয়াদ পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। উভয় ব্যক্তির মেয়াদের দোষী সাধারন শর্তে তাদের পুরো মেয়াদের জন্য কারাগারে থেকে যায় এবং মুক্তি পায়। 

সেলুলার জেলে একজন মহিলা দণ্ডিত হিসেবে জীবন
সেলুলার জেলে একজন মহিলা দণ্ডিত হিসেবে জীবন

যে কাজগুলির জন্য সেলুলার জেলে দোষী সাব্যস্ত হয় | Tasks for which convicts in Cellular Jail (Pre-Independence Era)

২০ বছরের কম বয়সী বন্দীদের কঠিন কায়িক শ্রম দেওয়া যাবে না; সাক্ষরদের প্রেসে নিযুক্ত করা হয়েছিল এবং বন্দীদের শারীরিক যোগ্যতা অনুসারে কাজ বরাদ্দ করা হয়েছিল। রাজনৈতিক বন্দীদের সাথে অন্যরকম আচরণ করা হয়েছিল।

পোর্ট ব্লেয়ার 
পোর্ট ব্লেয়ার 

আপনি কিভাবে সেলুলার জেলে পৌঁছবেন | How to reach to the cellular prison?

সেলুলার জেলটি পোর্ট ব্লেয়ার এসটিএস বাস টার্মিনাস (STS) অথবা এবারডিন বাজার থেকে প্রায় ২.৫ কিমি দূরে অবস্থিত। পর্যটকরা এবারডিন বাজার থেকে অটো বা ট্যাক্সি নিয়ে সেলুলার জেলে পৌঁছতে পারেন। অনেকে সেই পথ হেঁটেই পার করে ফেলেন। 

ভারতবর্ষ স্বাধীন হওয়ার সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে এই সেলুলার জেল বা কালা পানি। সেলুলার জেল, যা কালা পানি (কালো জলের জন্য হিন্দি) নামেও পরিচিত, ছিল ভারতের আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের একটি ঔপনিবেশিক কারাগার। কারাগারটি ব্রিটিশরা বিশেষত রাজনৈতিক বন্দীদের প্রত্যন্ত দ্বীপপুঞ্জে নির্বাসিত করার জন্য ব্যবহার করেছিল। ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় বটুকেশ্বর দত্ত, যোগেন্দ্র শুক্লা এবং বিনায়ক দামোদর সাভারকারের মতো অনেক উল্লেখযোগ্য ভিন্নমতাবলম্বীকে এখানে বন্দী করা হয়েছিল। আজ, কমপ্লেক্সটি একটি জাতীয় স্মৃতিসৌধ হিসাবে কাজ করে।


telegram channel Viral News on Telegram